রামহীন আন্দোলনের পর অবশেষে ইউজিসির অনুমোদন পেল গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ বিভাগ

Gono_uivrcity

নিজস্ব প্রতিবেদক

ইউএস বিডি টাইমস :

সাত দিন বিরামহীন আন্দোলনের পর অবশেষে ইউজিসির অনুমোদন পেল গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ বিভাগ।

সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়ের করা মামলায় ইউজিসির বিজ্ঞাপনের ওপর ছয়মাসের নিষেধাজ্ঞা জারি করে হাইকোর্ট এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দাবি করে আসা বিবিএ এবং সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের পূর্ব অনুমতিই বহাল থাকবে বলে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে রায় দেয় বলে নিশ্চিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এর আগে গত ২৬ এপ্রিল গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের অননুমোদিত কিন্তু শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়া বিবিএ সহ ৭টি কোর্সে শিক্ষার্থীদের ভর্তি না হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। এরপর থেকেই গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ বিভাগের শিক্ষার্থীরা অনুমোদনের জন্য আন্দোলন শুরু করেন। সময়ের সাথে সাথে তীব্র হয়ে ওঠে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন। আন্দোলনের অংশ হিসেবে ২৩ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন ও কন্ট্রোলার ভবনে তালা দেয় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। পরবর্তীতে ২৪ মে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে তালা দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।

এরপর আন্দোলন একটু শিথিল হলেও ২৮ মে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ধরনের কার্যক্রম বন্ধ করে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটে তালা দিয়ে লাগাতার আন্দোলনের ঘোষণা দেন।

সোমবার ২৯ মে সকাল ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দেলোয়ার হোসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গেট খুলে দেয়ার অনুরোধ করে দুই মাসের সময় চাইলে শিক্ষার্থীরা সেই দাবি নাকচ করে দেয়।

অবশেষে বিকেল ৪টার দিকে বিবিএ ও সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের অনুমোদন বহাল থাকার কথা জানতে পারেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এবং অতিসত্বর এই শুভ সংবাদ দিয়ে ফেসবুকে বিবৃতি দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিক্ষা নিয়ন্ত্রক মীর মুর্তজা আলি বাবু। একই সাথে তিনি সাংবাদিকদের এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

উল্লেখ্য, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বরাবরই বিবিএ বিভাগের অনুমোদন আছে বলে দাবি করে আসছিল।

ইউএস বিডি টাইমস /রহমান

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>